DailyDhakaNews.com
ঢাকাসোমবার, ১৭ জানুয়ারি, ২০২২
  1. অর্থনীতি
  2. আইন-আদালত
  3. আন্তর্জাতিক
  4. এক্সক্লুসিভ
  5. এভিয়েশন
  6. করোনা সর্বশেষ
  7. কৃষি ও প্রকৃতি
  8. ক্যাম্পাস
  9. খেলা
  10. গণমাধ্যম
  11. চাকুরি
  12. ছোটদের পোস্ট
  13. জাতীয়
  14. জোকস
  15. ট্যুরিজম
আজকের সর্বশেষ সবখবর

চা–বাগানে ছবি তোলা নিয়ে ছাত্রলীগের সঙ্গে বাগ্‌বিতণ্ডা, রিসোর্টে ভাঙচুর।

Ayesha Begum
সেপ্টেম্বর ২, ২০২১ ৯:১৫ অপরাহ্ণ
Link Copied!

নিজস্ব প্রতিনিধি:: মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গলে ঢাকা থেকে যাওয়া ছাত্রলীগ নেতাদের ছবি তুলতে নিষেধ করায় স্থানীয় জেরিন চা–বাগানের ডেপুটি ম্যানেজারকে মারধর করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। পরে চা–বাগানের শ্রমিকেরা ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীদের ওপর হামলা করেন এবং পাশের গ্র্যান্ড মুবিন রিসোর্টের চারটি কক্ষে ভাঙচুর চালান। খবর পেয়ে শ্রীমঙ্গল থানার পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

বৃহস্পতিবার সকালে উপজেলার রাধানগর এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। হামলায় দুই পক্ষের প্রায় ১৫ জন আহত হয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়েছেন।

আহত ব্যক্তিরা হলেন জেরিন চা–বাগানের শ্রমিক মামুন মিয়া (২৪), অঞ্জলী (২৫), ছন্দা সবর (৩৫), বিশ্বমনী রিকিয়াশন (২৬), পারুল বেগম (৩০), ভারতী সাঁওতাল (৪০), অনিতা গোয়ালা (৪০), আলো মনি বাড়ই (২৫), সৃতি সাংমা (৪০), মুসলিম মিয়া (২০), উত্তম গড়াই (২৫), আবদুল কাদির (২৬), ইন্দ্রজিৎ দাস (২৫) এবং ঢাকা থেকে আসা ছাত্রলীগের নেতা মো. রাফি (২৯) ও মো. রাসেল মিয়া (২৭)।

গ্র্যান্ড মুবিন রিসোর্ট কর্তৃপক্ষ ও স্থানীয় ব্যক্তিদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, ঢাকা মহানগর (উত্তর) ছাত্রলীগের সভাপতি মো. ইব্রাহীম হোসেন এবং ঢাকা উত্তর ছাত্রলীগের বিভিন্ন ইউনিটের আরও ১৮ নেতা-কর্মী গতকাল বুধবার রিসোর্টে ওঠেন। বেলা সাড়ে ১১টার দিকে তাঁরা রিসোর্টের পাশে জেরিন চা–বাগানের ৯ নম্বর সেকশনের কালাবন এলাকার ছবি তুলছিলেন। এ সময় ওই এলাকায় কর্মরত মহিলা চা–শ্রমিকেরা তাঁদের ছবি তুলতে নিষেধ করেন। এ নিয়ে শ্রমিকদের সঙ্গে নেতা-কর্মীদের কথা–কাটাকাটি হয়। পরে হামলার ঘটনা ঘটে।

গ্র্যান্ড মবিন রিসোর্টে গিয়ে দেখা যায়, রিসোর্টের চারটি কক্ষের আসবাব, দরজা–জানালা ভাঙা। রিসোর্টের সিসিটিভি ক্যামেরা, টেলিভিশন, পানির পাইপ ও ফুলের টব ইত্যাদি ভেঙে রাখা হয়েছে। ঘরের ভেতর রান্না করা খাবার পড়ে আছে।

রিসোর্টের মালিক আবদুল মুবিন বলেন, ‘ঝামেলা যা হওয়ার হয়েছে। কিন্তু এভাবে আমার রিসোর্টে হামলা চালানো উচিত হয়নি। চা–বাগানের শ্রমিকেরা এখানে এভাবে হামলা চালানোর ফলে আমার রিসোর্টের অনেক মালামাল নষ্ট হয়েছে। আমার এই ক্ষতি কীভাবে পূরণ হবে।’

জেরিন চা–বাগানের ব্যবস্থাপক সেলিম রেজা বলেন, ‘রিসোর্টের পাশের চা–বাগানে নারী শ্রমিকেরা চা–পাতা তোলার কাজ করছিলেন। এ সময় ঢাকা থেকে আসা ছাত্রলীগের নেতা–কর্মীরা চা–বাগানে ঢুকে নারীদের ছবি তুলছিলেন। চা–বাগানের শ্রমিকেরা ও আমাদের ডেপুটি ম্যানেজার মো. আলী তাঁদের ছবি তুলতে নিষেধ করলে তাঁরা ডেপুটি ম্যানেজারকে গালমন্দ করেন। তাঁরা বলেন, এটি সরকারি জায়গা, আমরা ছবি তুললে আপনাদের কী? ডেপুটি ম্যানেজার বারবার তাঁদের নিষেধ করলে তাঁরা উত্তেজিত অবস্থায় কথা বলতে থাকেন। বাগ্‌বিতণ্ডার একপর্যায়ে তাঁরা আমাদের ডেপুটি ম্যানেজারের গায়ে হাত তোলেন। তাঁকে টেনে রিসোর্টে নিয়ে যেতে চাইলে চা–বাগানের শ্রমিকেরা বাধা দেন। ছাত্রলীগের কর্মীরা নারী শ্রমিক ও ডেপুটি ম্যানেজারের ওপর হামলা করলে শ্রমিকেরা চা–বাগানের পাগলা ঘণ্টা বাজালে শ্রমিকেরা উত্তেজিত হয়ে রিসোর্টে যান। পরে আমরা গিয়ে শ্রমিকদের শান্ত করে বাগানে ফিরিয়ে এনেছি।’

ঢাকা মহানগর উত্তর ছাত্রলীগের সভাপতি ইব্রাহিম হোসেন সাংবাদিকদের বলেন, ‘চা–বাগানে ছবি তোলা নিয়ে স্থানীয় চা–শ্রমিকদের সঙ্গে একটু কথা-কাটাকাটি হয়েছিল। পরে স্থানীয় ব্যক্তিরা এসে এর একটি সমাধান করে দিয়েছেন। এটি আসলে একটি ভুল–বোঝাবুঝির কারণে হয়েছে। আমাদের ওপর কেউ হামলা করেনি। আমরাও কাউকে মারধর করিনি।’

মৌলভীবাজার পুলিশ সুপার মো. জাকারিয়া বলেন, ‘এখন পর্যন্ত কোনো পক্ষ আমাদের কাছে কোনো অভিযোগ দেয়নি। এখানে ছবি তোলা নিয়ে সামান্য ঝামেলা হয়েছিল। পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে এনেছে। রিসোর্টে সামান্য ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে।’

DailyDhakaNews.Com এই সাইটে নিজম্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো। বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।